বরং সেটাই ভালো হতো

বরং সেটা ভালো হতো, আমরা বেড়ে উঠতাম
কোনো বুনো লতাগুল্মের মতো। আমাদের মাঝখানে
মাথা উঁচিয়ে আকাশ ছুঁতো প্রকাণ্ড কোনো বৃক্ষ।
যাতে আমাদের দেখা হতো না কোনোদিন।

যদিও খুব কাছাকাছি এটা-ওটা পেঁচিয়ে বা জড়িয়ে
বাড়তে থাকতাম আমরা, কোনো একটা ঝোপ-জঙ্গলে,
যদিও আমাদের বয়স বাড়তো সমান্তরালে, যদিও একই
অক্সিজেনে ভাগ বসাতাম আমরা। সেটাই বরং ভালো হতো।

বরং সেটা ভালো হতো, মাঝখানে এক পৃথিবীর
দূরত্ব রেখে আমরা কোনো সাগরপাড়ের পাখি হয়ে
যেতাম। একই বাতাসে উড়িয়ে দিতাম শরীর।
একই জলে ডুব দিতাম কখনো কখনো।

কিন্তু আমাদের কোনো দিন দেখা হতো না। যার যার
মতো আমরা বেড়ে উঠতাম এবং একদিন যা হয়;
আমরা মিলিয়ে যেতাম মহাকালের অতল গহ্বরে।
সেটাই বরং ভালো হতো। সত্যিই, সেটা ভালো হতো।

Leave a Reply